সালাত মুমিনের প্রাণ

সালাত মুমিনের প্রাণ

সালাত মুমিনের বেঁচে থাকার হৃদস্পন্দন। সালাত মুমিনের অন্তরকে প্রশান্ত করে। হৃদয়ে আনন্দের ঢেউ তুলে। সালাতবিহীন জীবন কেবল হাহাকার আর হতাশার জীবন। সে জীবনে কোনো সুখ নেই আছে কেবল দুখের উঁকিঝুঁকি। স্রষ্টার দাসত্বের উত্তম বন্ধন হলো সালাত। একজন শাইখ বলেছিলেন— ‘দুখের মেঘ যখন তোমাকে চারদিক থেকে ঘিড়ে ফেলে। কষ্টের আগুনে যখন তোমার আত্নার দহন শুরু হয়ে যায়। দুঃখ–কষ্ট, বিপদ–ব্যর্থতায় তুমি যখন হতাশায় ডুবে যাও। পরিবার কিংবা সাথীদের থেকে পাও নিদারুন বেদনা। কষ্টের জাতাকলে যদি তোমার জীবনটা হয় একঘেঁয়েমীপূর্ণ। তোমার এমন কষ্টের জীবনে সুখের এক পশলা বৃষ্টি পেতে রবের সামনে দাঁড়িয়ে যাও। বলো, তাঁর কাছে তোমার যত কথা, যত ব্যথা, যত গ্লানি। তিনিই তোমার জীবনে সুখ এনে দিবেন। সুখের মৃদু হাওয়াতে তোমার জীবনটাকে সুখী করে দিবেন।’এই লেখাটা বই থেকে কপি করেছি ।
আপনি আরো বিস্তারিত জানতে পারবেন বইটি পড়ে। তাহলে আর দেরি কেন? বইটা যখন আসবে ,
সাথে সাথেই কিনে ফেলুন ।
অথবা আমাদের ইনবক্সে অর্ডার করে রাখুন । ইনশাআল্লাহ নির্ধারিত সময়ের মধ্যেই পৌঁছে দিব আপনাদের কাছে ।

ঈমান ধ্বংসের কারণ

ঈমান ধ্বংসের কারণ

অনুবাদক : নাজমুল হক সাকিব
সম্পাদক : আবদুল্লাহ আল মাসউদ

ইসলামের বিশ্বাস ও চেতনা নিয়ে আজকাল সর্বমুখী ষড়যন্ত্র চলছে। এ পরিস্থিতিতে একজন সাধারণ মুসলিমের পক্ষে তার বিশ্বাসের ক্ষেত্রে স্বচ্ছ ও আস্থাশীল থাকা একটি চ্যালেঞ্জ হয়ে দাঁড়িয়েছে। নিজেকে মুসলিম বলে দাবি করে এমন অনেকেই আজকাল জানে না, কোন বিশ্বাসটি তার মুসলিম-পরিচয়ের সাথে সাংঘর্ষিক। নিজেকে মুসলিম জাতিসত্তার একজন সদস্য বলে পরিচয় দিতে হলে কী কী বিশ্বাস লালন করতে হয় এবং কী কী বিশ্বাস বর্জন করতে হয়, অধিকাংশ মুসলিমই তা সম্পর্কে বেখবর। সেই উপলব্ধি থেকেই আমরা বিষয়টি নিয়ে কাজ করেছি।

বক্ষমান গ্রন্থটি আরব-বিশ্বের তাওহীদবাদী আন্দোলনের পুরোধা ইমাম মুহাম্মাদ ইবনু আবদিল ওয়াহহাব রহিমাহুল্লাহ কর্তৃক রচিত ‘নাওয়াকিদুল ইসলাম’ গ্রন্থের সংক্ষিপ্ত ব্যাখ্যা। ব্যাখ্যাকার শাইখ আবদুল আযীয ইবনু মারযুক তারীফি আরব-বিশ্বে একজন তাওহীদবাদী আলিম হিসেবে প্রসিদ্ধ। এই গ্রন্থে তিনি ঈমান বিনষ্টকারী দশটি বিষয় নিয়ে বাস্তবমুখী তথ্যনির্ভর আলোচনা করেছেন। একজন মুসলিমের জন্য এ বিষয়গুলো আত্মস্থ করা অত্যন্ত জরুরি। নতুবা যে-কোনো পন্থায় তার ঈমান হারিয়ে যাওয়ার আশঙ্কা থেকে যায়।

এক

এক

অনেকের ধারণা একসময় সবকিছু শূন্য ছিল, কোনো কিছুরই অস্তিত্ব ছিল না। এটি ভুল ধারণা। শূন্য কখনোই ছিল না। সব সময়ই একজন ছিলেন। তিনি অনাদি ও অনন্ত এক। চিরন্তন ও শাশ্বত এক। তিনি এক ও একক। তাঁর একার একক ইচ্ছাতেই বাকি সবকিছুর অস্তিত্ব। তিনি এক আল্লাহ। সার্বভৌম স্রষ্টা ও মহান প্রতিপালক। সেই এক সত্ত্বার এককত্ব প্রতিষ্ঠাই প্রতিটি সৃষ্টির উদ্দেশ্য; আমার, আপনার, সকলের।

স্রষ্টা ধর্ম জীবন

স্রষ্টা ধর্ম জীবন

স্রষ্টা ধর্ম জীবন

অধুনা চিন্তাবিদদের অনেকেই মনে করেন বর্তমান পৃথিবীতে বৌদ্ধ, খ্রিস্টান, হিন্দু বা মুসলিম নয় বরং সংখ্যাগরিষ্ঠ ধর্মহীনেরা। ধর্মহীনতার সংজ্ঞা সংশয়াতীত নয়। সাংস্কৃতিকভাবে নাস্তিকেরাও নিজেদের সাথে একটি ধর্মের সংলগ্নতা রক্ষা করেন। এই যোগসূত্রটা ভাষা কিংবা আত্মীয়তার মতো তা নেহায়েত জন্মসূত্রে পাওয়া। সংখ্যাগরিষ্ঠ মানুষ কোন নির্দিষ্ট ধর্মের অনুশাসনের প্রতি বিদ্রোহ হয়তো করে না তবে সুলুকসন্ধানও করে না। চিন্তাশীল উদ্যোগের মাধ্যমে যৌক্তিকতার সিঁড়ি বেয়ে ধর্ম প্রাপ্তির সৌভাগ্য খুব কম মানুষেরই হয়; বস্তুবাদে মত্ত মানুষ ধর্মহীনই থেকে যায়।